চাঁদপুরের জেলে পাড়ায় উৎসব

চাঁদপুরের জেলে পাড়ায় উৎসব

এ কে আজাদ, এসবিসি চাঁদপুর : প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষার ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে মুক্ত পদ্মা- মেঘনায় শুরু হয়েছে মাছধরা, এ এক প্রত্যাশিত উৎসব। জালে ধরা পড়ছে কাঙ্খিত রূপালি ইলিশ, আবারো সরগরম হয়ে উঠেছে জেলেপাড়া। কিন্তু যে হারে জেলেদের জালে ইলিশ ধরা পড়ছে, সেই হারে দাম কমেনি। তাও দূরদূরান্ত থেকে আসা ক্রেতারা তাজা ইলিশ কিনতে পেরে বেশ খুশি। দাম নিয়ে তাদের কোন অভিযোগ নেই।

টানা ২২ দিন বিরতির পর ২ নভেম্বর দিবাগত রাত ১২ টা থেকে জেলেরা নৌকা আর জাল নিয়ে নদীতে নামতে শুরু করে। তারপর থেকে পদ্ম-মেঘনায় জেলেদের মাছ ধরার উৎসব লক্ষ্য করা গেছে। নদীর পুরো বুক জুড়ে শুধু জেলে আর নৌকা দেখা গেছে।

চাঁদপুর সদর উপজেলার বহরিয়া বাজার ও হরিণা ফেরিঘাট, লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়নের দোকানঘর, তরপুরচন্ডী ইউনিয়নের আনন্দ বাজার, পৌর এলাকার পুরান বাজার এলাকা আড়ৎগুলো ঘুরে ইলিশের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

chandpur2২২ দিন নদীতে সকল প্রকার মাছ শিকার বন্ধ ও বাজারে ইলিশ ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ থাকায় আড়তগুলোতে চড়া দামে ইলিশ বিক্রি হয়েছে বলে মাছঘাট সূত্রে জানা যায়।

বহরিয়া নদী তীরবর্তী এলাকার জেলেরা বলেন, গেল বুধবার (০২ নভেম্বর) রাত থেকেই তারা ইলিশ শিকারে নদীতে নেমেছেন। তাদের জালে ধরা পড়া অধিকাংশ ইলিশের ওজন ২শ’ গ্রাম থেকে ৭/৮শ’ গ্রাম পর্যন্ত। তবে ছোট সাইজের ইলিশই বেশি ধরা পড়ছে। ১ কেজি ওজনের প্রতিটি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার থেকে ১১শ’ টাকায়। তাদের আড়তে কিশোর ইলিশ (টেম্পু ইলিশ) হালি হিসেবে (৪টা) বিক্রি হয়।

চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান কালু ভূইয়া এসবিসি৭১.কমকে বলেন, অভিযানের আগে মেঘনা নদীতে যে সংখ্যক ইলিশ পাওয়া গেছে, এখন একটু কম। ইলিশ প্রজনন মৌসুমে অভিযান সফল হওয়ায় এবার মা ইলিশ নদীতে প্রচুর ডিম ছাড়তে পেরেছে। নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবার পর বৃহস্পতিবার প্রথম দিন মাছঘাটে প্রায় শতাধিক মণ ইলিশ আমদানি হয়েছে।

হাইমচর সংলগ্ন মেঘনা নদীর হায়দারগঞ্জ থেকে শুরু করে চরভৈরবী, চাঁদপুর সদর, মতলব উত্তর-দক্ষিণ ও শরীয়তপুর জেলার পদ্ম-মেঘনার জেলেরা মোটামুটি মাছ পেয়েছে। সামনের ক’টি দিন আরো কি পরিমান মাছ ধরা পরে সেটাই দেখার বিষয়।

চাঁদপুরের মাছঘাটে ছোট ইলিশ বিক্রি হয়েছে ১৩ হাজার টাকা মণ দরে আর ৮শ’ ৯শ’ গ্রাম বড় ইলিশের মণ ছিলো ৩২ থেকে ৩৬ হাজার টাকা।

প্রসঙ্গত, গত ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত ২২ দিন চাঁদপুরের মেঘনা নদীর ষাটনল থেকে শুরু করে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার এলাকায় অভয়শ্রম এলাকা হিসেবে সব ধরনের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ ছিল।

সরকারের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে সাধারন ভোক্তারা বলেন, আগামী বছরের মার্চ ও এপ্রিল মাসে জাটকা রক্ষা অভিযান সফল হলে রূপালি ইলিশের সুদিন আবার ফিরে আসবে।

এসবিসি/একেএ/এএস