কারিগরি শিক্ষায় বাড়তি ৭শ’ কোটি টাকা দেবে বিশ্বব্যাংক

কারিগরি শিক্ষায় বাড়তি ৭শ’ কোটি টাকা দেবে বিশ্বব্যাংক

এসবিসি ডেস্ক : বাংলাদেশে কারিগরি শিক্ষা প্রসারে সহযোগিতা বাড়াতে বিশ্বব্যাংক অতিরিক্ত ১০ কোটি মার্কিন ডলারের ঋণ অনুমোদন করেছে। এই পরিমাণ অর্থ দিয়ে ২ লাখ শিক্ষার্থী ভোকেশনাল ও ডিপ্লোমা শিক্ষা শেষ করতে পারবে। বিশ্বব্যাংকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তির বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম বাসস।

অতিরিক্ত এই ১০ কোটি ডলার বিশ্বব্যাংকের চলমান স্কিলস্ এন্ড ট্রেনিং ইনহেন্সমেন্ট প্রকল্পে (এসটিইপি) সংযোজন করা হবে।বর্তমানে প্রকল্পটি ১৭ কোটি ৯০ লাখ ডলার ব্যয়ে বাস্তবায়ন হচ্ছে।এর সাথে আরো ১০ কোটি ডলার যুক্ত হওয়ায় প্রকল্পের কর্মপরিধি বিস্তৃত হবে। এসটিইপি প্রকল্পের আওতায় বৃত্তি পাওয়া এক লাখ ১০ হাজার গরীব শিক্ষার্থী ইতোমধ্যে ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করেছে। এছাড়া আরো ৭০ হাজার শিক্ষার্থী ৩৮টি ট্রেডে ৬ মাসের স্বল্পমেয়াদী কারিগরি প্রশিক্ষণ নিয়েছে, এদের মধ্যে ৪২ শতাংশ ইতোমধ্যে চাকুরী পেয়েছে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের প্রধান জোহান্স জাট বলেন,‘বাংলাদেশে প্রতিবছর ১৩ লাখ তরুণ-তরুনী শ্রমবাজারে প্রবেশ করছে,এদের জন্য নতুন কর্মসংস্থান তৈরি করার প্রয়োজন।’ তিনি বলেন, অতিরিক্ত এই অর্থ প্রশিক্ষণের দক্ষতা উন্নয়ন এবং স্থানীয় ও বৈদেশিক শ্রমবাজারের উপযোগি দক্ষ কর্মী তৈরি করবে। এতে যুবকরা যেমন বাজার উপযোগি কারিগরি প্রশিক্ষণ পাবেন,তেমনি উচ্চ বেতনের কর্মসংস্থানেরও সৃষ্টি হবে।

বিশ্বব্যাংক সূত্র জানায়,অতিরিক্ত এই অর্থায়ন সরকারী ও বেসরকারী খাতের পলিটেকনিক কলেজসমূহের প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বাড়ানোর আওতায় ক্লাশরুম ও পরীক্ষাগারের উন্নয়ন করা হবে।ইন্টারনিশীপ,জব কাউন্সিলিং এবং শিল্প-কারখানায় চাকুরী পবির্তনের ক্ষেত্রে সহায়তা করা হবে। এছাড়া স্বল্পমেয়াদী কারিগরি প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও প্রসার ঘটবে।

এসটিইপি প্রকল্পের বিশ্বব্যাংকের টিম লিডার মোখলেছুর রহমান বলেন,‘মানসম্মত পলিটেকনিক কলেজ কর্মবাজারের চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ কর্মী তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে।’

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সাধারণ শ্রমশক্তি যাচাই এবং চিহ্নিত করতে আরপিএল নামে একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

এসবিসি/এসবি