মেহেরপুরের করলা

মেহেরপুরের করলা

এসবিসি ডেস্ক :  মেহেরপুর জেলায় এ বছর করলার ব্যাপক চাষ হয়েছে, ফলনও খুব ভালো। দাম ভালো থাকায় সাধারণ কৃষকদের মাঝেও করলা চাষের আগ্রহ বেড়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে কম পুঁজিতে বেশি লাভ হওয়ায় কৃষকরা দিন দিন করলা চাষের দিকে ঝুঁকে পড়েছেন। বাসস বাংলা

জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ মৌসুমে প্রায় ২ হাজার হেক্টর জমিতে করলার চাষ করা হয়েছে। মেহেরপুরের আমঝুপি, কুতুবপুর, ঝাউবাড়িয়া, রঘুনাথপুর, পিরোজপুর, ফতেপুর, গোভিপুরসহ বিভিন্ন মাঠে করলা চাষ হচ্ছে। প্রতিবিঘা জমিতে করলা চাষ করতে খরচ হচ্ছে কুড়ি হাজার টাকা। আর বিক্রি হচ্ছে লক্ষাধিক টাকায়। মাত্র দেড় মাসে ফসল বিক্রি করতে পারায় কৃষক খুবই খুশি। মৌসুমের শুরুতে উৎপাদিত এ করলা প্রতি কেজি ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হয়।

সদর উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের করলা চাষি আল আমীন হোসেন। তিনি বলেন, ‘গত বছর ২০ শতক জমিতে করলা চাষ করেছিলাম। ১৫ হাজার টাকা খরচ করে ১ লক্ষাধিক টাকা আয় করেছি। এ বছর তাই জমি বাড়িয়ে ৪৫ শতক জমিতে চাষ করেছি। খরচ ৪০ হাজার টাকা, আয় হবে প্রায় ২ লাখ টাকা।’  আল আমীন জানান, একই জমিতে সাথী ফসল হিসেবে করলার পাশাপাশি বেগুন ও শিম চাষ করেছেন তিনি।

আমঝুপি ইউনিয়নের করলা চাষি রফিকুল আলম জানান, তিনি দুইবিঘা জমিতে চাষ করেছেন। খরচ হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত লক্ষাধিক টাকার করলা বিক্রি হয়েছে। বর্তমান বাজারদর থাকলে আরও লক্ষাধিক টাকার করলা বিক্রির আশা করছেন তিনি।

কৃষকরা জানান, তাদের সাফল্য দেখে এলাকার অনেকে এখন করলা চাষ করছেন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এ বছর ১ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে করলা চাষ হয়েছে। উন্নতমানের হাইব্রিড জাতের এই করলা মেহেরপুর জেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্যান্য জেলায় বাজারজাত হচ্ছে। প্রতিদিন অন্তত ১০ ট্রাক করলা যাচ্ছে ঢাকা, রাজশাহী, সিলেট, বগুড়াসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। প্রতিবছরই করলা চাষ বাড়ছে বলেও উপ-পরিচালক জানান।

এসবিসি/ওএফ/এসবি