ইরাকের বেইজিতে আত্মঘাতী হামলার দায় স্বীকার আইএস-এর

ইরাকের বেইজিতে আত্মঘাতী হামলার দায় স্বীকার আইএস-এর

is-newইরাকের বেইজির উপকণ্ঠে আত্মঘাতী বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট। তাদের চার বিদেশি সদস্য এই হামলা চালায় বলেও এক বিবৃতিতে দাবি করে জঙ্গি সংগঠনটি। এ হামলায় ১৪ জন নিহত এবং ২৭ জন আহত হয়।

এদিকে, সিরিয়ার রাক্কায় কুর্দি বাহিনী এবং আইএস’র মধ্যে লড়াই তীব্র হওয়ায় তুরস্কে পালিয়ে যাওয়ার অপেক্ষা করছে হাজার হাজার মানুষ।

শনিবার ইরাকের সর্ববৃহৎ তেল শোধনাগার বেইজির উপকণ্ঠে হাজ্জাজ শহরে আত্মঘাতী গাড়ি বোমা হামলা চালায় আইএস জঙ্গিরা।

রোববার অনলাইনে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে তারা জানায়, ইসলামিক স্টেটের চার বিদেশি যোদ্ধা এই হামলা চালিয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হামলাকারীদের ছবিও প্রকাশ করা হয়। ইরাকি সেনাবাহিনীর স্থানীয় কার্যালয়ে চালানো ওই হামলায় অন্তত ১৪ সেনা নিহত হয়।

একই দিন আনবার প্রদেশের ফালুজার দক্ষিণাঞ্চলে একটি সেনাদলের ওপর ভারী অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় আইএস জঙ্গিরা। হামলায় এক শীর্ষস্থানীয় সেনা কর্মকর্তা নিহত হন, আহত হয় কমপক্ষে ৫ জন।

রোববার, ইরাকের আনবার প্রদেশের আল বাগদাদি জেলায় স্থানীয় সুন্নি উপজাতি যোদ্ধাদের সহায়তায় নিরাপত্তা বাহিনীর চালানো অভিযানে অন্তত ১৬ আইএস সদস্য নিহত হয়েছে। এসময় জঙ্গিদের ৬টি ভারী যানবাহন ধ্বংস করে দেয়া হয়।

এদিকে, ইরাকে প্রায় অপ্রতিরোধ্য হলেও, সিরিয়ায় কুর্দি বাহিনীর অভিযানে বেশকিছু এলাকা হারিয়েছে আইএস। রোববার ব্রিটেনভিত্তিক মানবাধিকার ও পর্যবেক্ষক সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানায়, আলেপ্পোর তুরস্ক সীমান্তবর্তী এলাকায় আইএস বিরোধী বিদ্রোহীগোষ্ঠী ও কুর্দিদের আক্রমণের মুখে ধীরে ধীরে পিছু হটছে জঙ্গিরা।

দু’পক্ষের তীব্র সংঘাতের মুখে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় রাক্কা প্রদেশে থেকে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে পালিয়ে পালিয়ে যাওয়ার জন্য তুরস্ক সীমান্তে অপেক্ষা করছে প্রায় ২ হাজার মানুষ। এরইমধ্যে প্রদেশটি থেকে ১৩ হাজার সিরীয় নাগরিক তুর্কি শরণার্থী শিবিরগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে।